১০ দিনের মধ্যে রাফালে দাম জানানোর নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

 গুজরাটে নর্মদার তীরে মোদি যখন স্ট্যাচু অব ইউনিটির উদ্বোধন করছেন তখন সুপ্রিম কোর্টে আংশিক ধাক্কা খেল কেন্দ্র। যশবন্ত সিনহা এবং অরুণ শৌরির করা জনস্বার্থ মামলা-সহ একাধিক আবেদনের শুনানি করছে আদালত। বুধবারের শুনানিতে কেন্দ্রের মোদি সরকারকে খানিকটা ধাক্কাই দিল সুপ্রিম কোর্ট। এতদিন পর্যন্ত রাফালে চুক্তি সংক্রান্ত সমস্তরকম তথ্য দিতে নারাজ ছিল কেন্দ্র। কিন্তু আদালত নির্দেশ দিল আগামী দশ দিনের মধ্যে মুখবদ্ধ খামের মধ্যে যুদ্ধ বিমানের দাম সংক্রান্ত তথ্য জমা দিতে হবে । এমনকি এই যুদ্ধবিমানের কার্যকারিতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে আদালতে। কার্যকারিতা সংক্রান্ত তথ্য জমা দেওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে আদালতে।যদিও এই মামলাতেই আগের শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট, রাফালের দাম এবং উপযোগিতা নিয়ে প্রশ্ন করবে না বলেই জানিয়েছিল।


রাফালে চুক্তির তথ্য জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়, এই যুক্তি দেখিয়ে সংসদে তা পেশ করেনি কেন্দ্র। বিরোধীরা বারবার রাফালের দাম জানতে চাইলেও তা জানানো হয়নি। কেন্দ্রের অবস্থান ছিল স্পষ্ট, কোনওভাবেই জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে সমঝোতা করা যাবে না। কিন্তু এবার সেই সব তথ্য সর্বোচ্চ আদালতের কাছে জমা দিতে হবে। বুধবার শুনানিতে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ মন্তব্য করেন, “আমরা চাই রাফালে চুক্তির মূল্য এবং চুক্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য সুপ্রিম কোর্টে জমা পড়ুক। আগামী দশ দিনের মধ্যে মুখবদ্ধ খামে তা জমা করা হোক।” রাফালের মূল্য সংক্রান্ত চুক্তিপত্রের পাশাপাশি অনিল আম্বানির সংস্থার সঙ্গে কিসের ভিত্তিতে চুক্তি করা হল তাও মুখবদ্ধ খামে জানতে চেয়েছে আদালত।

তবে কেন্দ্রের কাছে স্বস্তির খবর, এখনই কোনও তদন্তকারী সংস্থার উপর চুক্তির তদন্তের ভার দেওয়া হয়নি। মামলাকারীরা চাইছিলেন আদালতের পর্যবেক্ষণে স্বাধীন সংস্থার দ্বারা পুরো চুক্তির তদন্ত হোক। এখনই সেই নির্দেশ দেয়নি সুপ্রিম কোর্ট। তাছাড়া কেন্দ্রেকে জানানো হয়েছে, তারা যে সমস্ত তথ্যকে জাতীয় নিরাপত্তার ইস্যু বলে মনে করছে সেইসব তথ্য মামলাকারীদের দেখানো হবে না। তাছাড়া যদি কেন্দ্রের মনে হয় ভারত ও ফ্রান্সের মধ্যেকার চুক্তিতে দামদর সংক্রান্ত তথ্য কোনওভাবেই ফাঁস করা যাবে না। তাহলে তা সুপ্রিম কোর্টে এফিডেভিট দাখিল করে তা জানাতে হবে।

Post a Comment

0 Comments