গাঁজা খাওয়ার সবচেয়ে মোক্ষম, ৬টি উপকার কী কী জানেন? জানলে চমকে যাবেন

“গাঁজা মানেই সর্বনাশা”, এটা আমাদের আশেপাশে কান পাতলেই শোনা যায়। গাঁজা নেশার আকারে অত্যাধিক সেবন করলে সেটা শরীরের পক্ষে ভীষন ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু আপনারা কি জানেন, চিকিৎসাবিজ্ঞানে গাঁজাকে নানাবিধ রোগ নিরাময়ের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে। হ্যা গাঁজা যদি ঔষধের আকারে সেবন করা হয় তবে সাড়তে পারে কঠিন অসুখ। কিন্তু কিভাবে সম্ভব সেটা?? আসুন জেনে নেই বিস্তারিত


১. ডায়বেটিস আমাদের ঘরে ঘরে এখন ছড়িয়ে পড়েছে। এই ডায়বেটিস মারাত্মক রূপ নিলে হাত পা ও শরীরের নানান অঙ্গে তীব্র জ্বাল যন্ত্রনার সৃষ্টি হয়। আর ক্যালিফোর্নিয়ার একদল চিকিৎসক জানাচ্ছেন যে এই ব্যথা কমানোর জন্য গাঁজাকে ব্যবহার করলে নিরাময় সম্ভব।

২. মানুষের স্নায়ুতন্ত্রে নানান স্তর থাকে। এই স্তরের মধ্যে যদি একটি বিশেষ স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হয় তবে “মাল্টিপল সক্লেরোসিস” নামক একপ্রকার স্নায়ুরোগ দেখা দেয়। আর সেই রোগের নিরাময়ের জন্য ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে গাঁজা সেবন করলে এইসব রোগের ঝুঁকি অনেক কমে যায়।


৩. একটু বয়স হলেই ঘরে ঘরে এখন স্ট্রোকের সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছে ভীষনভাবে। আর এই স্ট্রোকের ঝুঁকি দূর করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ নটিংহ্যামের একদন প্রবীন ডাক্তার মারিজুয়ানা সেবনের পরামর্শ দিচ্ছেন। যা মস্তিষ্ককে অনেক শান্ত ও সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

৪. মানব দেহে ক্যান্সার দেখা দিলে দিতে হয় কেমোথেরাপি। আর এই কেমোথেরাপির ফলে রোগীর তীব্র যন্ত্রনার সৃষ্টি হয়। আর তাছাড়াও কেমোথেরাপির অনেক পাশ্ব প্রতিক্রিয়া থাকে। আর গাঁজা এই পাশ্ব প্রতিক্রিয়া ও ব্যথা প্রশমনে বিশেষ ভুমিকা গ্রহন করে। এছাড়া কেউ যদি ডাক্তারের পরামর্শ মতো এই মারিজুয়ানা সেবন করে তবে টিউমারের ঝুঁকি কমিয়ে ক্যান্সারকে প্রতিরোধ করে।

৫. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কমনওয়েলথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল চিকিৎসক গবেষনা করে দেখেছেন যে গাঁজা যদি নির্দিষ্ট মাত্রায় প্রতিদিন একটি মৃগী রোগীর দেহে প্রবেশ অথবা সেবন করানো যায় তবে তাদের শারিরীক অবস্থার উন্নতি ঘটে। এমনকি একজন সুস্থ মানুষ সেবন করলেও মৃগী রোগের সম্ভাবনা কমে যায়।

৬. কেউ যদি হেপাটাইটিস সি এর মতো মারাত্মক রোগে ভুগে থাকেন ও তীব্র জ্বালা যন্ত্রণা অনুভিব করেন, তবে সেই ব্যক্তি যদি নির্দিষ্ট মাত্রায় প্রতিদিন গাঁজা সেবন করে তবে তার এই রোগের পাশ্ব প্রতিক্রিয়ায় ৮০ শতাংশ কমে যায়।

Post a Comment

0 Comments