পরিবারের রীতি, বালিগঞ্জের অভিজাত বাড়িতেই ধর্ষিতা বধূ

খাস কলকাতার বুকে নিজের বাড়িতেই নারকীয় যৌন নির্যাতনের শিকার হলেন এক মহিলা। বিয়ে হয়েছিল বালিগঞ্জ পার্কের একটি অভিজাত ধনী ব্যবসায়ী পরিবারে। কিন্তু বিয়ের কিছু দিন পরেই তাঁকে বলা হয় পরিবারের প্রথা ভাইদের মধ্যে স্ত্রী অদল বদল করা। অর্থাৎ এক ভাইয়ের স্ত্রীয়ের সঙ্গে অন্য ভাই যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হতে হবে।অভিযোগ, পারিবারিক প্রথার নামে এ ভাবেই দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে বাড়িতেই ধর্ষিতা হয়েছেন ওই মহিলা। মহিলার অভিযোগ, এতেই অত্যাচার শেষ হয়নি। তাঁর নিজের স্বামীও তাঁকে বাধ্য করতেন বিকৃত যৌনতায় সঙ্গ দিতে।প্রতিবাদ করায় জোটে শারীরিক নির্যাতন। অভিযোগ, পণের টাকার জন্য বাড়তে থাকে চাপ। কেড়ে নেওয়া হয় মহিলার বাপের বাড়ি থেকে আনা সমস্ত গয়না।





নিজের বাড়িতেই এই অত্যাচার আর সইতে না পেরে শেষ পর্যন্ত পুলিশের দ্বারস্থ হন ওই মহিলা। অভিযোগ জানান কড়েয়া থানায়। রাতেই বালিগঞ্জ পার্কের অভিজাত আরিহান্ত গার্ডেন আবাসনের চারতলার ফ্ল্যাটে হানা দেয় পুলিশ। মহিলার স্বামী সুরঞ্জন সেন এবং ভাসুর নীলাঞ্জন সেনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। দু’জনেই প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। ডিসি (দক্ষিণ পূর্ব) ডিভিশন, কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, “পুলিশ গেলে অভিযুক্তরা পুলিশকে বাধা দেয়। পুলিশকে মারধরও করে। ধৃতদের বিরুদ্ধে পুলিশকে মারধরের একটি আলাদা মামলা দায়ের করা হয়েছে।”




তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, সুরঞ্জনের স্ত্রী তাঁর অভিযোগে জানিয়েছেন, বিয়ের কয়েক মাস পরে একদিন তাঁর স্বামী জোর করেন নীলাঞ্জনের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হতে। নীলাঞ্জন তাঁকে বোঝান এটা পারিবারিক প্রথা। দুই ভাই তাঁদের স্ত্রীদের একে অন্যের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি করবেন। প্রথমেই সেই প্রথার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন ওই তরুণী। অভিযোগ, তার পর স্বামীর সক্রিয় সহযোগিতায় তাঁকে ধর্ষণ করে নীলাঞ্জন। অন্য দিকে পাল্লা দিয়ে চলতে থাকে সুরঞ্জনের বিকৃত যৌনতা। দিনের পর দিন এই অত্যাচার সইতে না পেরে বৃহস্পতিবার রাতে থানায় হাজির হন ওই বধূ।

Post a Comment

0 Comments