সিবিআই-পুলিশ সংঘাত নিয়ে উত্তাল সংসদ, রাজনাথ বললেন ‘নজিরবিহীন’

কলকাতা পুলিশ-সিবিআই সংঘাতের জেরে তপ্ত সংসদ। সোমবার সকাল থেকেই সংসদের উভয় পক্ষে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূল সাংসদরা। তৃণমূল সাংসদদের বিক্ষোভের জেরে দুপুর ১২টা পর্যন্ত লোকসভা মুলতবি করে দেন স্পিকার। ফের অধিবেশন শুরু হল তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় দাবি করেন, অভূতপূর্ব ঘটনার ব্যাখ্যা প্রধানমন্ত্রীকে সংসদে দিতে হবে।


কংগ্রেস সাংসদ মল্লিকার্জুন খড়গে বলেন, বিরোধী দলগুলিকে শেষ করার চেষ্টা হচ্ছে। বিরুদ্ধ স্বর উঠলেই সরকার তা প্রতিহত করার চেষ্টা করছে। রবিবার যা ঘটেছে তা শুধু পশ্চিমবঙ্গেই নয়, উত্তরপ্রদেশ-কর্নাটকেও এমন ঘটনা দেখা গিয়েছে। আমরা স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিতে চাই কোনও দলই মাথা নোয়াবে না। এ দিন তপ্ত হয় রাজ্যসভাও। তৃণমূল সাংসদদের প্রতিবাদ-বিক্ষোভে মুলতবি হয় রাজ্যসভাও।

সিবিআই-কেন্দ্রের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং রাজ্য পুলিশের সংঘাত ক্রমেই তীব্র আকার নিয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় কলকতা পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআইয়ের হানা দেওয়ার ঘটনা, কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকা নিয়ে তোপ দেগে ধর্মতলায় ধর্নায় বসেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ধর্মতলার ধর্না মঞ্চ থেকে মমতা তৃণমূল কর্মীদের নির্দেশ দেন জেলায় জেলায় প্রতিবাদ-বিক্ষোভের  জন্য। পাশাপাশি, দিল্লিতে আন্দোলনের সুর চড়া করতেও নির্দেশ দেন তিনি।

দলীয় নেত্রীর নির্দেশ মতোই এ দিন সকাল থেকেই সংসদে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ দেখান তৃণমূল সাংসদরা। প্রথমে সংসদের বাইরে প্রতিবাদ দেখান তারা। বেলা ১১টা সংসদের অধিবেশন শুরু হওয়ার পরই সেখানে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূল সাংসদরা। রীতিমতো ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন করেন তাঁরা। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে সরব হন তাঁরা। তৃণমূল সাংসদদের বিক্ষোভের জেরে বেলা দুটো পর্যন্ত মুলতবি করে দেওয়া হয় রাজ্যসভা। পাশাপাশি, লোকসভাতেও বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তৃণমূল সাংসদরা। তৃণমূলের বিক্ষোভের জেরে মুলতবি হয়ে যায় লোকসভাও।

Post a Comment

0 Comments