আরো দুই আসনের প্রার্থী জানালো বামফ্রন্ট

মালদহ উত্তর ও মুর্শিদাবাদের জঙ্গীপুর লোকসভা আসনে বামফ্রন্ট তাদের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে। এর ফলে মোট ৪০টি লোকসভা কেন্দ্রে বামফ্রন্টের প্রার্থীর নাম ঘোষিত হয়েছে। তবে বহরমপুর এবং মালদহ দক্ষিণ লোকসভা কেন্দ্রে বামফ্রন্ট এখনও কোনো প্রার্থী দেয়নি। বুধবার বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু একটি প্রেস বিবৃতি দিয়ে বলেছেন, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও দলসমূহের সঙ্গে জনগণের সম্পর্কের তূল্যমূল্য বিচার বিশ্লেষণ করে মুর্শিদাবাদের জঙ্গীপুর আসনে জুলফিকার আলি এবং মালদহ উত্তর আসনে বিশ্বনাথ ঘোষকে বামফ্রন্ট মনোনীত সিপিআই(এম) প্রার্থী করা হচ্ছে।

প্রেস বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, রাজ্য বামফ্রন্ট বিজেপি ও তৃণমূল বিরোধী ভোট একজায়গায় সমবেত করতে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেস দলের সঙ্গে আসন বোঝাপড়া নিয়ে প্রস্তাব দিয়েছিল। কোনো ক্ষেত্রেই অ্যালায়েন্স বা জোট করার লক্ষ্য নিয়ে এই আলোচনা সংগঠিত হয়নি। একইসঙ্গে সিদ্ধান্ত হয়েছিল, কংগ্রেসের গতবারের জেতা ৪টি আসন ও বামফ্রন্টের জেতা ২টি আসনে কোনো পারস্পরিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে না। এই বক্তব্য কংগ্রেস গ্রহণ করেছিল। কিন্তু হঠাৎ করে বামফ্রন্টের জেতা আসনে কংগ্রেস প্রার্থী ঘোষণা করে দেওয়ায় জটিলতা দেখা দেয়। আসন বোঝাপড়াও সমস্যা সঙ্কুল হয়ে দাঁড়ায়। এই পরিস্থিতিতে বারে বারে বামফ্রন্টের সভা করে সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়। গতকাল কংগ্রেসের জেতা চারটি আসন বাদে সব আসনে বামফ্রন্টের প্রার্থীদের তালিকা মঙ্গলবারই প্রকাশ করে দেওয়া হয়েছে।




উত্তর মালদহ এবং জঙ্গীপুরে প্রার্থী ঘোষণা করলেও আসন সমঝোতার পথ এখনও খোলা রেখে বিমান বসু বিবৃতিতে বলেছেন, এসত্ত্বেও পূর্বের বোঝাপড়া অনুযায়ী বামফ্রন্টের জেতা যে দুটি আসনে কংগ্রেস প্রার্থী ঘোষণা করেছে সেগুলো কংগ্রেস প্রত্যাহার করলে বামফ্রন্টও অবশ্যই এবিষয়ে ইতিবাচক দৃষ্টিতে পুনর্বিবেচনা করবে।

এদিকে মঙ্গলবার বামফ্রন্টের পক্ষ থেকে চারটি আসন ফাঁকা রেখে যে বার্তা দেওয়া হয়েছিলো তাতে কংগ্রেস ইতিবাচক সাড়া দেয়নি। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র জানিয়ে দেন যে, আমরা ৪২ আসনেই লড়ব। বৃহস্পতিবার কংগ্রেস সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য কলকাতায় সাংবাদিক বৈঠক করে বলেছেন, আমরা বামফ্রন্টের সঙ্গে সার্বিক জোট চেয়েছিলাম। শুধুমাত্র আসন সমঝোতা নয়। কিন্তু একতরফা প্রার্থী ঘোষণা করে আসন সমঝোতার আলোচনা বন্ধ করে দিয়েছে বামফ্রন্টই। কংগ্রেসের সম্ভাবনাময় আসনগুলিতেও প্রার্থী দিয়েছে তারা।

প্রদীপ ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, বামফ্রন্ট কংগ্রেসকে চারটি আসন ছেড়ে রেখেছিল। কংগ্রেস বামফ্রন্টের জন্য পাঁচটা আসন ছেড়ে রাখছে। বোলপুর, বিষ্ণুপুর, তমলুক, ডায়মন্ড হারবার এবং আসানসোল এই পাঁচটি আসনে কংগ্রেস প্রার্থী দেবে না।




এদিকে নির্বাচনী প্রক্রিয়া চলাকালীন পঞ্চায়েত দপ্তরের বিতর্কিত নির্দেশনামা নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছে বামফ্রন্ট। মঙ্গলবার রাজ্য সরকারের পঞ্চায়েত দপ্তর একটি নির্দেশনামা পাঠিয়ে জেলাশাসকদের জানিয়েছে, গ্রামপঞ্চায়েতগুলির সিভিল পরিকাঠামো নির্মাণ কাজের জন্য ব্যয়ের ক্ষেত্রে পূর্ববর্তী নির্দেশ পরিবর্তন করা হচ্ছে। এখন থেকে এফএফসি, পিবিজি অনুদানে এই ধরনের সিভিল নির্মাণ কাজে গ্রাম পঞ্চায়েতগুলি সাড়ে তিন লক্ষ টাকা পর্যন্ত ব্যয় নিজেরাই মঞ্জুর করতে পারবে। নির্বাচন প্রক্রিয়া চলাকালীন রাজ্য সরকারের এই নির্দেশনামা নির্বাচনী বিধি ভঙ্গের সমতুল বলে অভিযোগ করেছে বামফ্রন্ট। অন্যদিকে সিপিআই(এম)’র পক্ষ থেকে আসানসোলের মেয়রের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে নির্বাচন কমিশনের কাছে। শাসকদলের পক্ষে ৫ হাজার ভোটের ব্যবধান দিলেই ১কোটি টাকা মিলবে বলে দলীয় কর্মীসভায় বলেছিলেন আসানসোলের মেয়র। 

Post a Comment

0 Comments