বিধানসভা উপনির্বাচনে একজোটে লড়ব’, ঘোষণা সূর্য-সোমেনের

কোনও লুকোছাপা করে নয়৷ কর্মী-সমর্থকদের ধন্দে রাখা নয়৷ কেবলমাত্র নির্বাচনের আগে নয়৷ যৌথমঞ্চ গড়ে এবার লড়াই হবে একসঙ্গে৷ এবং সেটা নির্বাচনের অনেক আগে থেকেই৷ সিপিএমের সঙ্গে জোট প্রসঙ্গে আগেই একথা স্পষ্ট করেছিলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷ আর শুক্রবার সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত করার পথে আরও একধাপ এগোল সিপিএম-কংগ্রেস৷ দুই রাজনৈতিক দলের তরফে সাফ জানাল হল, আসন্ন তিন বিধানসভার উপনির্বাচনে একজোটে আসন সমঝোতার পথে লড়বে তাঁরা৷ এমনকী কলকাতা পুরনিগমের ভোটেও একই ফর্মুলায় লড়াবে বাম-কংগ্রেস৷


সূত্রের খবর, আসন্ন নির্বাচনে জোটের বিষয়ে শুক্রবার একান্তে বৈঠক করেন বামফন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু, সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র ও প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷ উক্ত বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হয় যে, আসন্ন উপনির্বাচনে কালিয়াগঞ্জ ও খড়গপুরে প্রার্থী দেবে কংগ্রেস এবং করিমপুর কেন্দ্রে প্রার্থী দেবে সিপিএম৷ নদিয়ার এই কেন্দ্রটিতে তাদের ভোট বেশি থাকলেও সেটি সিপিএমকে ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রদেশ কংগ্রেস৷ জানা গিয়েছে, আগামী বছর হতে চলা কলকাতা পুরসভার ১৪১টি ওয়ার্ডের নির্বাচনেও আসন সমঝোতার পথে হেঁটে একসঙ্গে লড়বে বাম-কংগ্রেস৷ সেক্ষেত্রে আসন সমঝোতা কীভাবে হবে সেই বিষয়ে কথাবার্তা চলছে৷ তৈরি হচ্ছে ড্রাফট৷ বর্তমানে সভাপতির পদ নিয়ে ডামাডোল চলছে জাতীয় কংগ্রেসের অন্দরে৷ আগামিকাল বলতে চলেছে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক৷ সম্ভবত সেখানেই ঘোষণা করা হবে পরবর্তী কংগ্রেস সভাপতির নাম৷ প্রদেশ কংগ্রেস সূত্রে খবর, সভাপতি ঘোষণা হলেই কয়েকদিনের মধ্যে তাঁর সম্মতির জন্য পাঠানো হবে সেই ড্রাফট কপি৷

উল্লেখ্য লোকসভা নির্বাচনের পর জুলাই মাসে সমস্ত জেলা সভাপতিদের সঙ্গে করা বৈঠকে করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷ বৈঠক শেষে তিনি স্পষ্ট জানান, বামেদের সঙ্গে এবার শুধুমাত্র নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জোট নয়৷ নির্বাচনের আগে থেকেই বাম-কংগ্রেস জোট হবে৷ এই জন্য কয়েকটি উপায়ও বাতলে দেন তিনি৷ বলেন, প্রথমত বামেদের সঙ্গে যৌথমঞ্চ গড়ে তুলতে হবে৷ দ্বিতীয়ত, এবার আর আড়ালে-আবডালে নয়, প্রকাশ্যেই জোট হবে৷ নাহলে মানুষের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণা তৈরি হতে পারে৷ তৃতীয়ত, নির্বাচন আসলেই এবার কেবল বামেদের সঙ্গে জোট করবে না কংগ্রেস৷ সবক্ষেত্রে একসঙ্গে লড়াই করবে৷ নাহলে সাধারণ মানুষ ভুল বুঝতে পারে৷ মানুষ ভাবতে পারে বাম-কংগ্রেস সুবিধাবাদী রাজনীতি করছে৷

Post a Comment

0 Comments