উত্তেজনার মধ্যেই শক্তি প্রদর্শন! ‘গজনভি’ মিসাইল পরীক্ষা করল পাকিস্তান

দুই দেশের মধ্যে চূড়ান্ত উত্তেজনার আবহে পরীক্ষামূলক ভাবে ব্যালিস্টিক মিসাইল ‘গজনভি’ উৎক্ষেপণ করল পাকিস্তান। বুধবার গভীর রাতে একটি ট্রেনিং ক্যাম্প থেকে এই  ভূমি-থেকে-ভূমি এই ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা করে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী। ইন্টার সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশনের ডিরেক্টর জেনারেল আসিফ গফফুর জানিয়েছেন, এই পাক ক্ষেপণাস্ত্রটি ২৯০ কিমি দূরে আঘাত হানতে পারে। শক্তিশালী এই ক্ষেপণাস্ত্র সফল ভাবে উৎক্ষেপণের জন্যে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও রাষ্ট্রপতি আরিফ আলভি পাক সেনাবাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। পাক সামরিক বাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন জয়েন্ট চিফস অব স্টাফ কমিটির (সিজিসিএসসি) চেয়ারম্যানও।

‘গজনভি’র বিশেষত্ব হল স্বল্পপাল্লার ওই  ক্ষেপণাস্ত্রটি বিভিন্ন ধরণের অস্ত্র বহন করতে পারে। সে কারণেই প্রয়োজন মাফিক একে ব্যবহার করার সুবিধা অনেক বেশি। ১৯৯৫ সালে প্রথম বার ওই ক্ষেপণাস্ত্রের সফল উৎক্ষেপণ হয়। পরে সেটিতে আরও পরিবর্তন আনা হয়েছে। যুদ্ধক্ষেত্রে ব্যালিস্টিক মিসাইলের নানামাত্রিক ব্যবহার রয়েছে।

পাক সামরিক দফতরের মুখপাত্রের দাবি, এই বিশেষ ক্ষেপণাস্ত্রে রয়েছে ব্যালিস্টিক মিসাইল ডিফেন্স প্রোগ্রাম। এর ফলে বহুদূর থেকে আসা মিসাইলকে প্রতিহতও করতে পারবে এই অস্ত্রটি। গত জানুয়ারি মাসেও পাকিস্তান একটি ব্যালিস্টিক মিসাইল পরীক্ষা করেছিল।


ইতিমধ্যেই ভারত-পাক কূটনৈতিক কাজিয়া চরমে পৌঁছেছে। কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তর প্রতিবাদে আন্তর্জাতিক মঞ্চে গিয়েছে পাকিস্তান। সেখানে যদিও খুব সুবিধে হয়নি। ভারতীয় হাইকমিশনারদেরও ফিরিয়েছে পাকিস্তান। বন্ধ করেছে বাস-ট্রেনের পরিষেবা। ভারত অবশ্য কাশ্মীর বিষয়ক সিদ্ধান্তকে অভ্যন্তরীণ বিষয়ই বলেছে প্রথম থেকে, অনড় থেকেছে নিজের অবস্থানে।

Post a Comment

0 Comments